বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ২৯, ২০২০ : ৭:৫৬ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

ইলিশের বাজারে বৈশাখি হাওয়া

2স্টাফ রিপোর্টার :: বর্ষবরণে চলছে নানা আয়োজন, যার প্রভাব পড়ছে বাজারেও। বৈশাখের হাওয়া বইছে ইলিশের বাজারে। বর্ষবরণে পান্তা-ইলিশের সংযোজন বাঙালিয়ানায় ভিন্নতা এনেছে। ইলিশ ছাড়া বৈশাখ!  এ যেন বাঙালি সংস্কৃতির স্বাদ পানসে হয়ে যাওয়া।
বাংলা নববর্ষকে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেয়া বাঙালি সংস্কৃতির এক পুরনো ঐতিহ্য। পান্তা-ইলিশ ছাড়া যেন সেই আনুষ্ঠানিকতা অপূর্ণ রয়ে যায়। আর এখনও বৈশাখের ১ দিন বাকি থাকলেও বেড়েছে ইলিশের চাহিদা। চাহিদার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ইলিশের দাম। বিক্রেতারা বলছেন দাম বাড়ার একটাই কারণ চাহিদার তুলনায় আমদানি কম।
লালবাজারে গিয়ে দেখা যায়, বিক্রেতারা দুই কেজি বা তার চেয়ে বেশি ওজনের প্রতি ইলিশের দাম হাঁকাছেন সাড়ে তিন হাজার টাকা। আর এক কেজি ওজনের ১টি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে প্রতি ১ হাজার ৫ শত থেকে ১ হাজার ৩৫০ টাকা। এছাড়াও ছোট আকারের ৩টায় ১ কেজি মাছের দাম ৫৫০ টাকা। ২টায় কেজি ইলিশের দাম ৯০০ থেকে ১ হাজার টাকা। স্বপ্ন ডিপাটমেন্টাল স্টোরে গিয়ে দেখা যায়, ৩৫০ গ্রাম থেকে ৪৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১৮৫ টাকা। ১ কেজি ওজনের মাছ ১ হাজার ৩৫০ টাকা, দেড় কেজি থেকে পৌঁণে ২ কেজি ওজনের মাছ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৮৫০ টাকা।
স্বপ্ন ডিপাটমেন্টাল স্টোর বারুত খানা শাখার সহকারী ম্যানেজার সালমান আহমদ জানান, অন্যন্য বছরের তুলনায় এবার ইলিশের চাহিদা কম। বাজারে মাছ কম আসার কারনে দাম একটু বেশি।
লালবাজারের ব্যবসায়ী সানুর মিয়া জানান, ইলিশ মাছ শিকারে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে বাংলা নববর্ষে বাড়তি দাম পাওয়ার আশায় আড়ৎদাররা আগে থেকে ইলিশ সংরক্ষণ করে রাখে। এটা চাহিদার তুলনায় খুবই কম। ফলে দাম বেশি।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

সেই রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ

আত্মহত্যা’ করা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহান জলির সাবেক …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open