সোমবার, অক্টোবর ২৬, ২০২০ : ১০:৩২ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

কেমন আছেন পর্দা কাঁপানো তারকারা?

127বিনোদন ডেস্ক :: চলচ্চিত্র নামটা শুনলেই বিনোদন প্রিয় মানুষের মনে একটু দোলা দেয়। পর্দায় প্রিয় অভিনেতা অভিনেত্রীকে দেখতে কতই না আগ্রহ থাকে ভক্তদের কিন্তু একজন অভিনেতা-অভিনেত্রী তাদের প্রিয় ভক্তদের মাঝে নিজের অভিনয়টাকে পৌঁছে দিতে কত পরিশ্রম করেন, সেটা হয়তো ভক্তদের খুব বেশি জানা নেই।
অভিনয় করে ভক্তদের মন জয় করেছে অনেক শিল্পী। দেশ বিদেশে তাদের রয়েছে অগনিত ভক্ত। ষাটের দশক থেকে বাংলা সিনেমা প্রিয় মানুষের মাঝে প্রতি নিয়ত পৌঁছে যাচ্ছে বাংলা চলচ্চিত্র কিন্তু সময়ের সাথে মানুষের রুচির পরির্তন হয়। সেই সুবাদে পরির্বতন এসেছে বাংলা সিনেমায়ও।

এখন অনেক সহজে তৈরি হচ্ছে সিনেমা। শ্যুটিং করতে সিনেমা টিম যাচ্ছেন ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ডের মতো উচ্চবিলাশী দেশে কিন্তু দর্শকের মাঝে একটা প্রশ্ন থেকেই যায়, কেন আগের মতো ছবি নির্মান হচ্ছে না?

বাংলা সিনেমার পর্দা কাঁপানো প্রবীণ অভিনেতা অভিনেত্রীরা আজও তাদের ভক্তদের দিয়ে যাচ্ছেন আনন্দ। বয়সের সাথে সাথে বেড়েছে তাদের অভিনয়ের পাল্লাটাও। মনের ইচ্ছাশক্তি থাকলেও পারছেন না অভিনয়ের সেই পুরনো শক্তিটি দেখাতে। তবুও ক্লান্তহীনভাবে কাজ কর যাচ্ছেন।

পাঠক আজ এমনই ৬ প্রবীণ তারকা নিয়ে আমাদের বিনোদন আয়োজন। আসুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক অভিনয় নিয়ে কি বলছেন এই ৬ খ্যাতিমান কিংবদন্তী অভিনেতা-অভিনেত্রীরা।

এ টি এম শামসুজ্জামান : আমি আমার দর্শকের ভালোবাসা নিয়ে আজও অভিনয় করে যাচ্ছি। আমি এখন ‘পাংকু জামাই’ ছবির কাজ নিয়ে ব্যস্ত কিন্তু সময়ের সাথে আর পারছি না। বয়স হয়েছে শরীরটা ভারি হয়ে গেছে। চাইলেও আর আগের মতো শক্ত অভিনয় করতে পারি না। সবাই দোয়া করবেন।

আনোয়ারা : আমি ভালো আছি। আমি বাংলা সিনেমা প্রিয় দর্শকদের জন্য আজও কাজ করে যাচ্ছি। আমি সবার কাছে দোয়া চাই। আমার বয়স হয়েছে আর অভিনয়ের সাথে নিজেকে মানাতে পারছিনা। আর ভক্তদের ভালোবাসার টানে ছুটে আসতে হয় অভিনয়ে। তাই যতদিন পারি চালিয়ে যাব।

আলীরাজ : আমি সব সময় যেটা বলে আসছি। সবাই বাংলা সিনেমা দেখবেন। আমোদের দেশের মান আমাদেরকে রক্ষা করতে হবে। আমি অভিনয়ের মানুষ। অভিনয় ছাড়তে পারব না। তাই আস্তে ধীরে অভিনয়টাকে চালিয়ে যাব। সবাই ভালো থাকেবেন।

নূতন : আমি নিজেকে অন্যকিছু ভাবতে পারি না। আমি সেই বাংলার নায়িকা। তবে কষ্ট হয় এখনকার সিনেমা দেখে। আগের মতো আর সিনেমা তৈরি হচ্ছে না। আমরা বয়সের ভাবে ঝিমিয়ে পড়েছি। ভালো কাজ পেলে অবশ্যই কাজ করার ইচ্ছা আছে।

মিজু আহমেদ : আমাদের বাংলা সিনেমার অবস্থা খুব একটা ভালো না। আর এখানে কেউ ভালো নেই। আমি যদি নাম বলতে থাকি তাহলে অনেকে রাগ করবেন। আমাদের বয়স হয়েছে আমরা আর আগের মতো পারব না কিন্তু আগামী প্রজন্মকে যদি কিছু দিয়ে যেতে না পারি তাহলে আমাদের মুখ কোথায় থাকেব?

ডলি জহুর : আমার অভিনয় করার ইচ্ছা থাকলেও আর পারি না। বয়সটাতো আর কমছে না। এখনও অনেকে কাজের জন্য বলে আমাকে কিন্তু পারছি না। তবুও কয়েকটা কাজ করছি। সবাই দোয়া করবেন।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

আয়নাবাজি মুক্তি পাচ্ছে কানাডা-অস্ট্রেলিয়ায়

বিনোদন ডেস্ক ; অমিতাভ রেজা চৌধুরীর আলোচিত চলচ্চিত্র ‘আয়নাবাজি’ বাংলাদেশে মুক্তি পায় গেল ৩০ সেপ্টেম্বর। …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open