বুধবার, অক্টোবর ২১, ২০২০ : ৫:২০ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

দিরাইয়ে মনোনয়ন দৌড়ে ৯০ প্রার্থী নয় ইউনিয়নে নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করছে

50800দিরাই প্রতিনিধি : দিরাই উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে যেন নির্বাচনী আমেজ বিরাজ করছে। হাওর পারের গ্রামগুলোতে প্রচণ্ড শীত উপেক্ষা করে সম্ভাব্য প্রার্থীদের সমর্থকরা চায়ের আড্ডা জমিয়ে তুলছেন। এ প্রথমবারের মতো জাতীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচন হওয়ার সম্ভাবনায় দলীয় মনোনয়ন লাভই প্রথম চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিচ্ছেন সম্ভাব্য ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। এবারের নির্বাচনে দলের মনোনয়ন লাভই প্রথম জয় হিসেবে দেখছেন তারা। দিরাই পৌরনির্বাচনের পর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে প্রধান দুটি রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির তৃণমূলের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা নড়েচড়ে বসছেন। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি থেকে দলীয় মনোনয়ন পেতে অন্তত ৯০ জন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী জোর লবিং শুরু করছেন। কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন এ নিয়ে আলাপ আলোচনায় সরব হয়ে উঠছে গ্রামীণ জনপদ, শহর ও শহরতলী।
দলীয় প্রতীক নৌকা মার্কা নিয়ে সদ্য সমাপ্ত পৌর নির্বাচনে জয়লাভ করায় আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা দেখা গেলেও পৌর নির্বাচনে বিএনপি পরাজিত হওয়ার কারণে তৃণমূল নেতাদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। তবে দিরাইয়ের রাজনীতি দলীয়ভাবে আওয়ামী লীগ বা বিএনপিতে নয় দুই মেরুর দুই নেতা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক ও সাবেক সংসদ সদস্য নাছির উদ্দিন চৌধুরী কেন্দ্রীক।
জানা যায়, রফিনগর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট অভিরাম তালুকদার, শাহিদ মিয়া, মহসিন রেজা, রেজোয়ান খান ও মামুন মিয়া। বিএনপি সমর্থিত ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি লুৎফুর রহমান ও বদরুল আলম।
ভাটিপাড়া ইউনিয়নে আওয়ামী ঘরানার সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাদের নাম আলোচনায় আসছে তারা হলেন বর্তমান চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী, সোহাদ চৌধুরী, শহিদুর রহমান চৌধুরী, পাখি চৌধুরী, রুহুল আমিন, শাহাজাহান কাজী, সুমন্ত চন্দ্র দাস ও মাহবুব চৌধুরী। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী তালিকায় রয়েছে বেলাল আহমদ, সেজু মিয়া, ফখরুর ইসলাম ও নবাব তালুকদার এর নাম। রাজানগরে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন, সৌম্য চৌধুরী, শফিকুল হক, বর্তমান চেয়ারম্যান আকিক আহমদ মধু ও আবদুল হান্নান। বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীরা হলেন, হুমায়ুন কবির, নওশেরান চৌধুরী ও একে কুদরত পাশা। চরনারচর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা হলেন, পরিতোষ রায়, রাতুল চৌধুরী, জগদীশ সামন্ত, জয়কুমার বৈষ্ণব ও প্রশান্ত রায়। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীরা হলেন রতি কান্ত দাস, জলিল মিয়া, সামছুল হক তালুকদার ও রতন তালুকদার।
সরমঙ্গল ইউনিয়নে বিএনপি সমর্থিত সম্ভাব্য প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান এহচান চৌধুরী ও মোয়াজ্জেম হোসেন জুয়েল।করিমপুর ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আছাব উদ্দিন সরদার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শাহাজাহান সরদার, রাজীব চৌধুরী, দীপক চৌধুরী, অ্যাডভোকেট শহিদুল হাসমত ও শাহ আলম সরদার। বিএনপি সমর্থিত সম্ভাব্যরা হল আবদুর রহিম, সেলিম সরদার ও সুজাত আহমদ। জগদল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুস সালাম, হুমায়ুন রশিদ লাভলু, আবু এহিয়া, ইফতিয়াখ হোসেন মঞ্জু, বাদশা মিয়া, আবদুল মন্নান, ছুবা মিয়া, জিল্লুল মিয়া মনোনয়ন প্রত্যাশী। বিএনপি সমর্থিতদের মধ্যে সাবেক চেয়ারম্যান মুখলেছুর রহমান লাল মিয়া, আলী রব ও কামরুল ইসলাম মনোনয়ন চাইবেন।
তাড়ল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আকিকুর রেজা পুলিশ, দোলন চৌধুরী, আহমদ চৌধুরী ও সামছুল হক। বিএনপি সমর্থিত বর্তমান চেয়ার নুরুল হক ও আবদুল কদ্দুস। কুলঞ্জ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ সমর্থিত ছুফি মিয়া, বর্তমান চেয়ারম্যান আবদুল আহাদ মিয়া, মিলন মিয়া, একরার হোসেন, পবিত্র কুমার তালুকদার, ইসহাক মিয়া, মাসুক মিয়া মতিন মিয়া, নজরুল ইসলাম শিশু মিয়া, শফিকুল ইসলাম টিটু, ফজলে রাহি রাব্বি। বিএনপি সমর্থিত আলাউর রহমান আলা মিয়া, মুজিবুর রহমান ও আবদুর রহিম মনোনয়ন প্রত্যাশী।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

সিলেটের বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে উপজেলার দৌলতপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডে মেম্বার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open