মঙ্গলবার, অক্টোবর ২০, ২০২০ : ৫:৪১ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

দুই কন্যার সোনালি পরশ (ভিডিও সহ )

12 ডেস্ক রিপোর্ট ::  কখনো ইন্দিরা গান্ধী অ্যাথলেটিকস স্টেডিয়াম, কখনো ভোগেশ্বরী ফুকনানি ইনডোর, ভেন্যু থেকে ভেন্যুতে হন্যে হয়ে ঘুরছেন ঢাকা থেকে আসা বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) কর্মকর্তারা। সবার চোখে-মুখে রাজ্যের বিষণ্নতা। গেমস যতই এগিয়েছে, কর্মকর্তাদের হতাশা বেড়েছে ততই। কাল তাই ভারোত্তোলক মাবিয়া আক্তার সীমান্ত যখন সোনা জিতলেন, বিওএর মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজাসহ অন্যরা হন্তদন্ত হয়ে ঢুকলেন গুয়াহাটির দিসপুর ভোগেশ্বরী ইনডোরে। কী এক টনিকে সেই বিষণ্নতা মুহূর্তেই উধাও। এসেই ভারোত্তোলক সীমান্তকে পরম স্নেহে জড়িয়ে ধরলেন বিওএ মহাসচিব। স্বর্ণকন্যাকে ঘিরে সবাই ব্যস্ত হয়ে পড়লেন ছবি তুলতে।
ঢাকায় সর্বশেষ এসএ গেমসে ১৮টি সোনার পদক জেতে বাংলাদেশ। কিন্তু এবার তো শুরুই করতে হয়েছে কটি সোনা ছেঁটে ফেলে। গতবারের ৪ সোনাজয়ী কারাতে, ২ সোনাজয়ী গলফ ও সোনাজয়ী ক্রিকেট এবার তো অন্তর্ভুক্তই হয়নি। বাকি ১১টি পদক ধরে রাখার ব্যাপারেও উচ্চাশা ছিল না। তবে ভেতরে ভেতরে সোনা জয়ের আর্তি তো ছিলই। সেই আর্তি কিছুটা পূরণ করলেন প্রথমে সীমান্তই, এরপর সন্ধ্যায় সাঁতার থেকে সোনা আনলেন মাহফুজা খাতুন শিলা। সন্ধ্যায় পুরো সাঁতার দলকে কাছে ডেকে নিয়ে হাসিঠাট্টায় মেতে উঠলেন বিওএর মহাসচিব।

আসলে কাল দিনটি ছিল বাংলাদেশের মেয়েদের। ভারোত্তোলনে সীমান্তের সোনা জয়ের আগে ফুলপতি চাকমা জেতেন রুপা। কিন্তু সব আলো শেষ পর্যন্ত কেড়ে নেন সীমান্তই। ফুলপতি মেয়েদের ৫৮ কেজি ওজন শ্রেণিতে ১৪৪ কেজি ভার তোলেন। রাঙামাটির মেয়ের এটাই কোনো আন্তর্জাতিক গেমসে সর্বোচ্চ সাফল্য। ঢাকায় রেখে আসা আড়াই বছরের কন্যা মেনুলাকে বারবার মনে পড়ছিল এমন আনন্দের দিনে, ‘মেয়েকে নিয়ে অনুশীলন করা কী যে কষ্ট সেটা বলে বোঝাতে পারব না। কিন্তু খেলার প্রতি টান বলেই থাকতে পারি না।’ ফুলপতির পর ভারোত্তোলনে আরেকটি রুপা জেতেন সাথী সুলতানা। তিনি জিতেছেন ৬১ কেজি ওজন শ্রেণিতে।

কুস্তিতে ছিল বঙ্গললনার সাফল্য। গত পরশু রুপা জিতেছেন রিনা আক্তার, ব্রোঞ্জ সুমা চৌধুরী ও নদী চাকমা। কাল ব্রোঞ্জ জিতেছেন রেশমা আক্তার ও তানজিলা মাসুদি। রেশমা ৫৩ কেজি ও তানজিলা ৫৮ কেজিতে ব্রোঞ্জ জিতেছেন। ৮৬ কেজিতে ব্রোঞ্জ জিতেছেন মোহাম্মদ রহমান। শিলংয়ে টেবিল টেনিসের মহিলা দলও ব্রোঞ্জ জিতেছে।

গত দুই দিনের মতো কালও যথারীতি দাপট দেখিয়েছে ভারত। তৃতীয় দিন শেষে ভারত ২৮টি সোনা, ১২ রুপা ও ৩টি ব্রোঞ্জ জিতে সবার ওপরে। ৮টি সোনা, ১৭টি রুপা ও ১৩ ব্রোঞ্জ জিতে দুইয়ে শ্রীলঙ্কা। এবার গেমসে পাকিস্তান খুবই কমসংখ্যক অ্যাথলেট নিয়ে এসেছে। সেই সুযোগেই শ্রীলঙ্কার মুখে সোনালি হাসিটা এত চওড়া। পাকিস্তান ২টি সোনা, ৪টি রুপা ও ৭টি ব্রোঞ্জ নিয়ে তৃতীয় স্থানে। চতুর্থ বাংলাদেশের হাতে ২ সোনা, ৩ রুপা ও ১৩ ব্রোঞ্জ।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

আর্জেন্টিনায় সবাইকে ছাড়িয়ে মেসি

ক্রীড়া ডেস্ক :  এখনো ‘কালি’টা পুরোপুরি মুছে যায়নি। তিন নাকি হট ফর ক্লাব, নট ফর …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open