রবিবার, অক্টোবর ২৫, ২০২০ : ১:৫৭ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

কিশোর ইয়াকুব হত্যা: দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে মামলা স্থানান্তরের দাবি

indexসুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জ শহরতলির মাইজবাড়ি বদিপুর গ্রামে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে নিহত ইয়াকুব মিয়া (১৬) হত্যা মামলাটি দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে স্থানান্তরের দাবিতে গতকাল বুধবার এলাকাবাসী সুনামগঞ্জ পৌর শহরে মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। পরে একই দাবিতে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি দেন তাঁরা।
গত ১০ জানুয়ারি রাতে সদর উপজেলার কুরবাননগর ইউনিয়নের মাইজবাড়ি গ্রামের বদিপুর এলাকায় দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে ইয়াকুব মিয়া নিহত হন। ইয়াকুব বদিপুর এলাকার মৃত আজমত আলীর ছেলে। পরদিন ইয়াকুব মিয়ার বড় ভাই হয়রত আলী বাদী হয়ে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মামলার তিন আসামি সদর উপজেলার বুড়িস্থল গ্রামের বাদল মিয়া (২০), পৌর শহরের হাসননগর এলাকার শফিক মিয়া (২০) ও গুজাউড়া এলাকার জাকির হোসেনকে (১৯) গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারের পর ওই তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার দিন রাত সাড়ে ১০টার দিকে মাইজবাড়ি গ্রামের বদিপুর এলাকায় বাদল, শফিক ও জাকিরকে ঘোরাঘুরি করতে দেখে এর কারণ জানতে চান ইয়াকুব মিয়া। এ নিয়ে তাদের মধ্যে কথাকাটাটির এক পর্যায়ে বাদল মিয়া ইয়াকুব মিয়ার গলায় ছুরিকাঘাত করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
গতকাল মিছিল শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় প্রাঙ্গণে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, পৌর মেয়র মো. আয়ুব বখত জগলুল, কুরবাননগর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবুল বরকত, মাইজবাড়ি বদিপুর এলাকার সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি আফজল নূর, ইউপি সদস্য তাজ উদ্দিন ও ইছাক আলী, মাইজবাড়ি গ্রামের বাসিন্দা সারাজ মিয়া, তৈয়ব আলী, জুনেদ আহমদ, জসিম উদ্দিন প্রমুখ।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

সিলেটের বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে উপজেলার দৌলতপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডে মেম্বার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open