রবিবার, অক্টোবর ২৫, ২০২০ : ৪:৩৪ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

ছাত্রলীগ কর্মী হাবীবের ময়না তদন্ত সম্পন্ন, গ্রেফতার নেই

12096572_621704637971314_8401321233703461966_n-copyস্টাফ রিপোর্টার :: আভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন হওয়া সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্রলীগ কর্মী কাজী হাবিবের ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে লাশ গ্রামের বাড়িয়ে নিয়ে গেছেন তার পরিবারের সদস্যরা। হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। তবে এখনো কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।
সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানার ওসি সোহেল আহমদ এ তথ্য নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, মামলার প্রস্তুতি চলছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের জবানবন্দি অনুসারে খুনিদের চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদেরকে আটকের জন্য অভিযান চলছে।
এদিকে, এ ঘটনার সূত্র ধরে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি দু’দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জানিয়েছে, আজ বুধবার ও আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকবে।
নিহতের বড় ভাই কাজী বাদল জানিয়েছেন, বুধবার ময়না তদন্ত সম্পন্নের পর হাবীবের লাশ দাফনের জন্য গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিয়েছেন। নিহত হাবীব কুমিল্লার ব্রাক্ষণপাড়া উপজেলার রাণীগঞ্জ গ্রামের কাজী সিদ্দিকুর রহমানের পুত্র।

সিলেট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রোক্টর মুহিব ইবনে সিরাজ জানান, উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় দু’দিনের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
মঙ্গলবার সকালে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্রলীগ কর্মী কাজী হাবিব নিজ দলের প্রতিপক্ষ গ্রুপের হামলায় গুরুতর আহত হন। রাতে নগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু কোলে ঢলে পড়েন তিনি।প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট সফরে আসার একদিন আগে এ ঘটনা ঘটলো।

হাবীব সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বিবিএ ৪র্থ বর্ষের দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্র। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে এগারোটায় নগরীর শামীমাবাদে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মাঠে ছাত্রলীগ ক্যাডার হোসাইন আহমদ সাগর ও সোহেলের নেতৃত্বে একদল ছাত্রলীগ কর্মী তার উপর হামলা চালায়। এ সময় হাবিবকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে তারা। পরে আশপাশের শিক্ষার্থীরা তাকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। তার অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে মাউন্ট এডোরা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র জানায়, কাজী হাবিবুর রহমান দীর্ঘ দিন থেকে শামীমাবাদ এলাকার ছাত্রলীগ নেতা হোসাইন আহমদ সাগর গ্রুপের সঙ্গে ছিল। কিন্তু গত কয়েক দিন আগে সে মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম তুষার গ্রুপে চলে যায়। মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট আগমনকে স্বাগত জানিয়ে সাগরের নেতৃত্বে ওই এলাকায় একটি মিছিল বের করা হয়। কিন্তু, ওই মিছিলে অংশ নেয়নি হাবীব। যে কারণে মিছিলশেষে সাগরের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ কর্মীরা হাবীবের ওপর হামলা চালায়।

ছাত্রলীগের অন্য একটি সূত্র জানায়, সাগর প্রথমে ছাত্রলীগ নেতা বিধান সাহা গ্রুপের সাথে সম্পৃক্ত ছিল। গ্রুপ বদল করে সে নগরীর কালীবাড়ি এলাকার ছাত্রলীগ ক্যাডার ‘কিলার’ সাহেদ গ্রুপে যোগ দেয়। বর্তমানে ওই গ্রুপের সাথে তার সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে ছাত্রলীগের একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলীম তুষারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি শুনেছি, নিজেদের মধ্যে বিরোধে খুন হয়েছে হাবীব। হাবীব তার গ্রুপের কিনা- তিনি সে বিষয় এড়িয়ে যান। তিনি বলেন, এ হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত থাকুক-আমি তাদের বিচার চাই।

২০১৪ সালের ১৯ নভেম্বর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দু’পক্ষের বন্দুক যুদ্ধ চলাকালে সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির বিবিএ তৃতীয় বর্ষের ছাত্র সুমন রায় খুন হন। এর ১৪ মাসের মাথায় খুন হলেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র হাবীব।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

সিলেটের বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে উপজেলার দৌলতপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডে মেম্বার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open