মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১, ২০২০ : ৩:১৮ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

বিএনপির প্রার্থীদের জন্য অনলাইনে ভোট চাইছেন খালেদা

Khaleda-Advertiseডেস্ক রিপোর্ট: আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থীদের জন্য ভোটারদের কাছে অনলাইনে ভোট চাইছেন বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। রোববার থেকে দেশের বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইছেন দল প্রধান খালেদা জিয়া।গ্রিন এন্ড রেড টেকনোলজির মাধ্যমে দেশের অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত হচ্ছে খালেদা জিয়ার ছবি সম্বলিত ভোট চাওয়ার এ বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপনে খালেদা জিয়ার ছবি এবং ধানের শীষ প্রতীকসহ লেখা আছে, ‘আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে জনগণের ভোটের অধিকার, সুশাসন, জান-মালের নিরাপত্তা ও গণতন্ত্র ফিরে পেতে বি.এন.পি. মনোনীত প্রার্থীকে ধানের শীষে ভোট দিন।-বেগম খালেদা জিয়া।’এর আগে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিভিন্ন মেয়র প্রার্থী অনলাইন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ভোটারদের কাছে ভোট চেয়েছেন। তবে দল প্রধান হিসেবে খালেদা জিয়ার এ ভোট চাওয়ার বিজ্ঞাপনই দেশে প্রথম। এর আগে কোনো দলের প্রধান অনলাইনে নিজ দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাননি।এ বিষয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এটা একটা যুগান্তকারী পদক্ষেপ। অনলাইন বিজ্ঞাপন নির্বাচন কমিশন অনুমোদন দিয়েছে। এটা আগেও দেওয়া হত। এখনকার যুগে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম এবং অনলাইনের সাহায্য নিতেই হবে। এটা পৃথিবীর সব দেশেই নেয়া হয়।’অনলাইনের এ বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে বিকল্প পদ্ধতিতে ভোট চাইছেন বেগম খালেদা জিয়া। এছাড়া এ বিকল্প পদ্ধতির অংশ হিসেবে টেলিভিশন বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইবেন খালেদা জিয়া। এজন্য ৩৮ সেকেন্ডের একটি ভিডিও চিত্রও ধারন করা হয়েছে। ভিডিও চিত্রে ভোটারদের কাছে নিজ প্রার্থীদের জন্য ভোট চেয়েছেন বিএনপি নেত্রী। বিজ্ঞাপন চিত্রটি আগামী সোমবার থেকে দেশের বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশনে প্রচারিত হবে বলে জানা গেছে।এর আগে ঢাকা এবং ঢাকার আশ-পাশের পৌরসভায় দলীয় প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইবেন বলে গুঞ্জন শোনা গিয়েছিল। কিন্তু নিরাপত্তার কারণে তিনি মাঠে নামেননি বলে জানান দলটির একাধিক নেতা। সর্বশেষ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থীদের পক্ষে ভোট চাইতে গিয়ে গত ২৩, ২৪ ও ২৫ এপ্রিল মোট ৩ বার হামলার শিকার হন খালেদা জিয়া।এরমধ্যে ২৫ আগস্ট বাংলামটরের ওই হামলায় খালেদা অক্ষত থাকলেও তার গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসময় চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক আবদুল কাইয়ুম ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তা কর্মকর্তা অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট সামিউল হকসহ দশজন আহত হন।এর পর দীর্ঘদিন যাবত লন্ডন ছিলেন খালেদা জিয়া। ওইসময় চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়া লন্ডন গেছেন বলে বিএনপি থেকে বলা হলেও সরকার দলের অভিযোগ, দেশ বিরোধী ষড়যন্ত্র করতেই খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর। খালেদা জিয়া লন্ডন থাকা অবস্থায়ই দেশে হত্যা করা হয় ২ বিদেশীকে। এ ২ হত্যায় আওয়ামীলীগ নেতারা দাবি করেন, খালেদা জিয়া জড়িত। এ নিয়ে উত্তপ্ত হয় রাজনৈতিক মাঠ। কেউ কেউ বলেন, খালেদা জিয়া লন্ডনই থাকবেন, তিনি দেশে ফিরবেন না।তবে সকল জল্পনা-কল্পনা শেষে দীর্ঘ ৬৭ দিন পর গত ২১ নভেম্বর দেশে ফিরে আসেন এ ‘আপসহীন নেত্রী।’ দেশে ফিরে আসার আগে তার নিরাপত্তা নিয়েও শঙ্কিত ছিল বিএনপি। এ নিরাপত্তা ইস্যুতেই পৌরসভা নির্বাচনে দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইতে মাঠে নামেননি দল প্রধান খালেদা জিয়া। মাঠে না নামলেও দলের প্রার্থীদের জন্য ভোট চাইতে বের করেন বিকল্প পদ্ধতি।এদিকে আশংকার কথা জানালেও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে দলের প্রার্থীদের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী বিএনপি নেত্রী। রোববার বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট বার অডিটোরিয়ামে এক অনুষ্ঠানে খালেদা জিয়া বলেন, ‘মানুষ ধানের শীষে ভোট দেয়ার জন্য বসে আছে। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে ৮০ ভাগ ভোট পেয়ে ধানের শীষ মার্কা বিজয়ী হবে। কারণ যখনই নির্বাচন এসেছে বাংলাদেশের মানুষ ধানের শীষকে জিতিয়েছে।’বিডি২৪লাইভ

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

আওয়ামী লীগের সম্মেলনে ট্র্যাফিক নির্দেশনা

আসন্ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা দিতে আগামী শুক্রবার থেকে রোববার (২১-২৩ অক্টোবর) পর্যন্ত রাজধানীতে …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open