মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১, ২০২০ : ৯:২৯ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

হবিগঞ্জে বদলে গেছে দৃশ্যপট, প্রচারণায় বিএনপি নেতাকর্মীরা

 45930 ডেস্ক রিপোর্ট ::  হবিগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে এত দিন আওয়ামী লীগ ও দলীয় ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীর দখলে ছিল নির্বাচনী মাঠ। সোমবার থেকে বদলে গেল এ দৃশ্য। গতকাল বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে জোরেশোরে প্রচারণা শুরু করেন দলীয় নেতা-কর্মীরা।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, হবিগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতাউর রহমান ওরফে সেলিম, বিএনপির জি কে গউছসহ পাঁচজন মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অপর প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মিজানুর রহমান, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. আবদুল কাইয়ূম ও ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আবদুল কাদির।

বিএনপির প্রার্থী জি কে গউছ হবিগঞ্জ পৌরসভার সাময়িক বরখাস্ত হওয়া মেয়র। বর্তমানে তিনি সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার আসামি হিসেবে কারাগারে আছেন।

হবিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দের আগ থেকে প্রচার চালাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী আতাউর রহমান ওরফে সেলিম ও একই দলের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী মিজানুর রহমান। কিন্তু প্রতীক বরাদ্দের আগ পর্যন্ত বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে সেভাবে কেউ প্রচারণা চালাননি। কারণ, আওয়ামী লীগের প্রার্থী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ করেছিলেন বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্রের বৈধতা নিয়ে। এ ছাড়া বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন আরও দুজন। সব মিলিয়ে ভোটারদের মাঝে শঙ্কা ছিল জি কে গউছের এবারের নির্বাচন নিয়ে। জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা বিএনপির প্রার্থীর বিরুদ্ধে করা অভিযোগ খারিজ করে দেওয়ায় এবং কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়ন প্রত্যাহার করায় সব শঙ্কা দূর হয়ে যায়।

গতকাল বিকেলে বিএনপির প্রার্থীর ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে কয়েক শ নেতা-কর্মী প্রচারণা শুরু করেন। এতে নেতৃত্ব দেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি সাবেক সাংসদ শেখ মো. সুজাত মিয়া।
হবিগঞ্জ পৌর এলাকার ভোটার জসিম উদ্দিন বলেন, ‘এত দিন এক দলের একতরফা প্রচারণা দেখেছি। গতকাল বিএনপির প্রার্থীর প্রচারণা শুরু হওয়ায় পৌরসভায় নির্বাচন নতুন রূপ পেয়েছে।’

জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান বলেন, ‘আমরা এত দিন মাঠে নামিনি প্রতীক বরাদ্দ না পাওয়ার কারণে। গতকাল আমরা বিধিমতো প্রতীকসহ ভোটারদের কাছে উপস্থিত হয়েছি।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

সেই রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ

আত্মহত্যা’ করা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহান জলির সাবেক …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open