বুধবার, নভেম্বর ২৫, ২০২০ : ১১:৩১ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

পৌর ভোটেও প্রচারে নামছেন খালেদা!

20150917020137-1ডেস্ক রির্পোট: গত এপ্রিলে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে দল-সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রচারণায় নামলে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছিল তখন। উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল রাজনীতির মাঠ। আইনি বাধা না থাকায় পৌর নির্বাচনেও তিনি দলের প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণায় নামবেন কি না, এ প্রশ্ন ঘুরে-ফিরে আসছে রাজনৈতিক মহলে।বিএনপির পক্ষ থেকে এ বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি বলা হলেও প্রচারণায় নামার বিষয়টি আলোচনার টেবিলে আছে বলে জানা গেছে। দলটির একজন সহ-দপ্তর সম্পাদক নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) মাঠে নামার বিষয়ে সেভাবে জোরালো আলোচনা হয়নি। শারীরিক অবস্থা, নিরাপত্তা ও নির্বাচন কমিশনের কোনো বাধা-নিষেধ থাকবে কি না, এসব চিন্তা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে এটা আপাতত বলা যাবে না।”আগামী ৩০ ডিসেম্বর দেশের ২৪৩টি পৌরসভায় একযোগে ভোট নেয়া হবে। নির্বাচনী বিধিবিধান অনুযায়ী সংসদের বাইরে থাকায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রার্থীদের পক্ষে প্রচারণায় নামতে কোনো বাধা নেই। অন্যদিকে নিয়ম অনুযায়ী মন্ত্রী-এমপিরা এই সুযোগ পাচ্ছেন না।যদিও মাঠে নামলে খালেদা জিয়া মাত্র তিন দিন প্রচারণার সুযোগ পাবেন; তবু এই বিষয়টিই সরকারের মধ্যে চিন্তার সৃষ্টি করেছে। ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষপর্যায় থেকে এ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দৃষ্টি আকর্ষণেরও চেষ্টা করা হয়েছে। পৌর নির্বাচনে মন্ত্রী-এমপিদের বঞ্চিত করে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর প্রচারণার সুযোগ রাখায় কমিশনের সমালোচনাও করেছেন তারা।ইতিমধ্যে সরকারি দলের সঙ্গে সুর মিলিয়ে সংসদের বিরোধী দল অর্থাৎ জাতীয় পার্টিও মন্ত্রী-এমপিদের নির্বাচনের প্রচারণার সুযোগ দেয়ার দাবি জানিয়েছে।সরকারি দলের উদ্বেগের কারণ হলো- খালেদা জিয়া যেসব এলাকায যাবেন, ওই এলাকার বিএনপির নেতাকর্মী একে উজ্জীবনের বার্তা হিসেবে দেখবেন। যারা গ্রেপ্তারের ভয়ে আত্মগোপনে আছেন, তারাও প্রকাশ্যে আসবেন।শনিবার এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম এ বিষয়ে কড়া বক্তব্য দেন। তিনি বলেন, “খালেদা জিয়া যে সুযোগ পাবেন, আমরা কেন সেটি পাব না? সবার সমান সুযোগ রাখা দরকার ছিল। কমিশন কাজটা ঠিক করেনি।”স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের প্রতি ইসির সচিব সিরাজুল ইসলামের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি সরাসরি উত্তর না নিয়ে সাংবাদিকদের বলেন, “অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি, যারা রাষ্ট্রীয় সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে থাকেন, তারা প্রচারণায় অংশ নিতে পারবেন না।  খালেদা জিয়া এখন মন্ত্রী-এমপিদের সমমর্যাদায় নন।  তিনি এ ধরনের সুযোগ-সুবিধাও নেন না।  সে ক্ষেত্রে তার প্রচারণায় কোনো বাধা নেই।”জানা গেছে, সিদ্ধান্ত হলে খালেদা জিয়া ঢাকার পার্শ্ববর্তী কয়েকটি জেলায় দল-মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় অংশ নিতে পারেন।এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ড.ওসমান ফারুক ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমার এমন কিছু জানা নেই। আর চেয়ারপারসন তো অসুস্থ।”তবে দলের একটি সূত্র বলছে, “নির্বাচনী প্রচারণায় না নামলেও ডিসেম্বরে ঢাকার পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেগম খালেদা জিয়ার সমাবেশ করার চিন্তা আছে। তবে এ নিয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।” গত এপ্রিলে অনুষ্ঠিত ঢাকা সিটি করপোরেশন (উত্তর-দক্ষিণ) নির্বাচনে আইনী বাধা না থাকায় খালেদা জিয়া আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের মেয়র পদপ্রার্থী তাবিথ আউয়াল ও মির্জা আব্বাসের পক্ষে প্রচারণায় নেমেছিলেন। তার প্রচারণাকালে কারওয়ান বাজার ও বাংলামোটরে দুই দিন তার গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটে।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

চীনে টর্নেডো-শিলাবৃষ্টিতে ৯৮ জনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : চীনের পূর্বাঞ্চলীয় জিয়াংসু প্রদেশে টর্নেডো ও শিলাবৃষ্টির আঘাতে কমপক্ষে ৯৮ জনের মৃত্যু …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open