বৃহস্পতিবার, জুন ২৪, ২০২১ : ১০:৩১ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

কানাইঘাটে যৌথ বাহিনীর অভিযান : বিএনপি-জামায়াতের ১৪ নেতাকর্মী গ্রেপ্তার

3কানাইঘাট সংবাদদাতা: কানাইঘাট উপজেলাজুড়ে আবারও বিরোধী জোটের নেতাকর্মীদের ধর পাকড় শুরু হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার রাতভর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসা বাড়িতে যৌথ বাহিনী বিশেষ অভিযান চালিয়ে বিএনপি জামায়াতের ১৪ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে। হঠাৎ করে কানাইঘাটে যৌথবাহিনীর অভিযানের ফলে বিএনপি-জামায়াত শিবিরের শত শত নেতাকর্মীরা বাড়ি ঘর ছেড়ে পালিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিচ্ছেন।
কানাইঘাট থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে নাশকতামূলক কর্মকান্ডের সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার করতে গত বৃহস্পতিবার রাতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন সিলেটের এডিশনাল পুলিশ সুপার (উত্তর) সুজ্ঞান চাকমা, র‌্যাব-৯ এর সহকারি পরিচালক এএসপি মাঈনুদ্দীন চৌধুরী ও সিলেট উত্তর সার্কেলের এএসপি ধীরেন্দ্র মহাপাত্রের নেতৃত্বে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বিপুল সংখ্যক বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ সদস্য যৌথ অভিযান চালিয়ে বিএনপি ও জামায়াত শিবিরের ১৪ নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃত প্রত্যেকের বিরুদ্ধে নাশকতামূলক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ততা থাকার সন্দেহে আটক করা হয়েছে। বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা রয়েছে বলে জানান ওসি।
গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন, উপজেলা যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক সুরতুন নেছা মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাজউদ্দিন সাজু, ৩নং দিঘীরপাড় পূর্ব ইউপি সদস্য খসরুজ্জামান, আল হেরা দাখিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা তাজুল হক, নুরুল হোসেন, এখলাছুর রহমান, নিজাম উদ্দিন, গোলাম খালিক, প্রবাসী নাজিম উদ্দিন, বিএনিপ নেতা ফার্নিচার ব্যাবসায়ী মখলিছুর রহমান, সেলিম উদ্দিন, শিবির নেতা নজরুল ইসলাম, ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের, কামরুল ইসলাম।
এদিকে উপজেলা বিএনপির সভাপতি মামুনুর রশিদ মামুন ও জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির মাওলানা আব্দুল মালিক নিরীহ নেতাকর্মীদের বিনাদোষে গ্রেপ্তার করা হয়েছে দাবি করে এর তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে যৌথ বাহিনী তাদের দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বাড়িতে বাড়িতে হানা দিয়ে নির্বিচারে শিক্ষক, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধিদের গ্রেপ্তার করে। যাদের আটক করা হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কোন মামলা নেই। অথচ সরকারী দলের ছাত্র সংগঠনের সন্ত্রাসের কারণে কানাইঘাট আজ সন্ত্রাসের জনপদে পরিণত হয়েছে। তাদেরকে গ্রেপ্তার করছে না প্রশাসন, তাদের আশ্রয় প্রশ্রয় দেওয়া হচ্ছে। বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ দাবি করেন, বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের প্রতিনিয়ত গ্্েরফতার করে সাজানো মামলায় জেলহাজতে পাটানো হচ্ছে।
অন্যদিকে যৌথ বাহীনির অভিযানে ছোট ফালজুর গ্রামের মৃত মফুর আলীর ছেলে কানাইঘাটের গাউছ উদ্দিনকে (৪৫) শহর উল্লাহ বাজার থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে ডাকাতি সহ মাদক দ্রব্য আইনে পৃথিক দু’টি মামলা রয়েছে বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

সিলেটের বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে উপজেলার দৌলতপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডে মেম্বার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open