বৃহস্পতিবার, জুন ২৪, ২০২১ : ৯:৩৫ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

সৈয়দ মহসিন আলীর মরদেহ ঢাকায় পৌঁছেছে

সিলেট ভিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমঃ বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলীর মরদেহ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে। মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে মানবন্দর থেকে মরদেহ রাজধানীর ৩৪ মিন্টোরোডের সরকারি বাসভবনে পৌঁছায়। সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে মন্ত্রীর মরদেহ আসে। বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গার গেট (গেট নম্বর-৮) দিয়ে মরদেহ বের করে আনা হবে। মরদেহ বহনের জন্য যমুনা মেডিকেল সার্ভিসের (ঢাকা মেট্রো ঘ- ২১০৮৬৪) একটি অ্যাস্বুলেন্স আনা হয়েছে। মন্ত্রীর মরদেহ গ্রহণ করতে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন- অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড গওহর রিজভি, জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজ প্রমুখ। এর আগে মঙ্গলবার রাত ১০টা ৪০ মিনিটে তার মরদেহ শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে। এর আগে বেলা সাড়ে ৩টায় সিঙ্গাপুরে সৈয়দ মহসীন আলীর জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামীকাল বুধবার সকাল ৮টা থেকে ৯টা পর্যন্ত সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হবে। সকাল ১০টায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১১টায়  হেলিকপ্টারযোগে মরদেহ নেয়া হবে মৌলভীবাজারে। সেখানে আরেকটি জানাজার পর বাদ আছর তাকে দাফন করা হবে।  সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। উল্লেখ্য, গত সোমবার ভোরে সিঙ্গাপুরের মাউন্ড এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী মারা যান। নিউমোনিয়া, ডায়াবেটিস ও হৃদরোগের সমস্যা নিয়ে ৩ সেপ্টেম্বর ভোরে বারডেম হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে তাকে লাইফ সাপোর্টে চিকিৎসা দেয়া হয়। এরপর উন্নত চিকিৎসার জন্য ৫ সেপ্টেম্বর এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সিঙ্গাপুরের জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয় তাকে। সৈয়দ মহসিন আলী ১৯৪৮ সালের ১২ ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল সড়কের ‘দর্জি মহল’ এ এক সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একজন খ্যাতিমান ও অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ ছিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি একইসঙ্গে সশস্ত্র যোদ্ধা ও সংগঠক। তিনি ২০১৪ খ্রিস্টাব্দের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৩৭-মৌলভীবাজার-৩ আসন হতে জাতীয় সংসদের সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। ১২ জানুয়ারি, ২০১৪ সরকারের মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন এবং সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। ১৯৭১-এ ২৩ বছর বয়সে তিনি বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য সক্রিয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। তিনি যুদ্ধকালীন সিলেট বিভাগ সিএনসি স্পেশাল ব্যাচের কমান্ডার হিসেবে সম্মুখযুদ্ধে নিষ্ঠার সঙ্গে নেতৃত্ব দেন। তিনি ১৯৯৮ থেকে ২০০৫ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত মৌলভীবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সৈয়দ মহসিন আলী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা, সমাজসেবক ও জনদরদী ব্যক্তিত্ব হিসেবে সুপরিচিত ছিলেন। সামাজিক উন্নয়নমূলক বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতা ছিল। তিনি বিভিন্নভাবে প্রতিষ্ঠানগুলোকে পৃষ্ঠপোষকতা করতেন।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বেতন স্কেল ১০ গ্রেডে উন্নীতকরণের দাবি প্রধান শিক্ষকদের

ডেস্ক রিপোর্ট :: দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড (নন-ক্যাডার) প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন উভয় প্রধান শিক্ষকদের প্রবেশ পদে …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open