সোমবার, জুন ১৪, ২০২১ : ৩:২৬ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

সক্রিয় চামড়া সিণ্ডিকেট

সিলেট ভিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কমঃ কোরবানির ঈদ সামনে রেখে সক্রিয় হয়ে উঠছে চামড়া পাচারকারীরা। নীলফামারী সহ উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন সীমান্তে তাঁবু খাটিয়ে সবরকম প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে চামড়া ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট। চামড়া সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও পাচারের সব আয়োজন এরই মধ্যে সম্পন্ন করেছে চোরাকারবারিরা। আর এ কাজে বিনা সুদে লগ্নি করা হচ্ছে কোটি কোটি টাকা। নিয়োগ করা হচ্ছে গরু ব্যবসায়ী ও কসাই ছাড়াও শত শত দালাল। তাদের হাতে তুলে দেয়া হচ্ছে নগদ লাখ লাখ টাকা। সূত্র জানায়, দেশের বাজারে চামড়ার দরপতন, চড়াসুদে ব্যাংক থেকে টাকা  পেতে নানান ঝুটঝামেলা, চামড়া দিয়ে টাকার জন্য আড়তদারদের পিছু পিছু ঘোরাসহ নানা ভোগান্তির সুযোগকে কাজে লাগাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে সীমান্তের ওপারের চামড়া শিল্পের সঙ্গে জড়িত ব্যবসায়ীরা। প্রতি বছরের মতো এবারও ওই সিন্ডিকেট তাদের এদেশীয় আত্মীয়স্বজনদের মাধ্যমে আগাম লগ্নি করছে কোটি কোটি টাকা। সূত্র জানায়, নীলফামারী সদর ডোমার ও সৈয়দপুর উপজেলা সদরেই প্রায় ৩০ জন হিন্দু মাড়োয়ারি ও অবাঙালি ব্যবসায়ী সরাসরি এ কারবারের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দিন দিন বাড়ছে চামড়া ব্যবসায়ী, কসাই আর দালালের ভিড়। নীলফামারী শাখামাছা বাজারের কয়েকজন প্রভাবশালী হিন্দু ব্যবসায়ী প্রকাশ্যেই দালাল নিয়োগ করেছেন চামড়া ক্রয়ের জন্য। সূত্র জানায়, নীলফামারী ছাড়াও পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, লালমনিরহাট জেলার বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে চামড়া পাচারের জন্য প্রস্তুত শত শত দালাল সিন্ডিকেট। চামড়া সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও পাচারের জন্য সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে চামড়া সংরক্ষণ আড়ত। নীলফামারীর কয়েকজন গরু ব্যবসায়ী, দালাল, কসাই ও চামড়া ব্যবসায়ী জানান, নীলফামারীসহ উত্তরাঞ্চলের কোরবানিকৃত পশুর প্রায় ৬০ ভাগ চামড়াই হাত গলিয়ে সীমান্তের ওপারে চলে যাবে। দেশীয় বাজারের চেয়ে ওপারের বাজারদর বেশি ও সুদছাড়া মোটা অংকের আগাম পুঁজি প্রাপ্তিই চামড়া পাচারে উৎসাহিত করছে বলে অনেক চামড়া ব্যবসায়ী মনে করছেন। এদিকে ঈদকে সামনে রেখে ভারতীয় বিভিন্ন মসলায় ছেয়ে গেছে উত্তরাঞ্চলের হাটবাজার। উপজেলা সদর সৈয়দপুরে বিশাল মজুত গড়ে উঠছে চোরাই পথে আসা মসলার। নিম্নমানের এসব মসলা স্থানীয় গরুর হাটগুলোতে অনেকটা সস্তা দরেই বিক্রি হবে। অপরদিকে ডোমার উপজেলার চিলাহাটী, কেতকীবাড়ী, মুক্তিরহাট, ডিমলার ডাঙ্গারহাট, ঠাংঝাড়া তিস্তা সীমান্ত এলাকার একাধিক সূত্র জানায়, চামড়া চোরাকারবারিদের মাধ্যমে একশ’, পাঁচশ’ ও এক হাজার টাকার নতুন চকচকে জাল টাকা আসছে দেশের অভ্যন্তরে। গরুর হাটগুলোকে মাথায় রেখে জাল টাকা লেনদেন বেড়ে গেছে এলাকায়। সূত্র জানায়, সীমান্ত সংলগ্ন হাটবাজারগুলোতে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের টার্গেট করেই বিভিন্ন পন্থায় এ টাকা বাজারে ছাড়া হচ্ছে।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

রপ্তানি আয় বেড়েছে ৮.৯৫ শতাংশ

নিউজ ডেস্ক : চলতি ২০১৫-১৬ অর্থবছরের ১১ মাসে (জুলাই-মে) রপ্তানি আয় বেড়েছে আগের অর্থবছরের একই …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open