শনিবার, নভেম্বর ২৮, ২০২০ : ৭:৩৩ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

সরকার কখনোই গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করতে চায়নি : প্রধানমন্ত্রী

সিলেটভিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম :  গণমাধ্যমকে সরকার কখনোই নিয়ন্ত্রণ করতে চায়নি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  আজ সন্ধ্যায় জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের একাংশের উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার মাহফিলে অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।  প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সম্মানে আঘাত করে কেউ কিছু বললে কারো সহ্য হলেও আমার তা সহ্য হয় না।  তিনি বলেন, আমরা চাই দেশের সংবাদমাধ্যম আরও শক্তিশালী হোক। নিয়ন্ত্রণ করতে চাই না। কোনো কিছু করতে গেলে নীতিমালা প্রয়োজন। দেশের সংবাদ মাধ্যমগুলো নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করবে এমন প্রত্যাশাও করেন তিনি।  এ সময় প্রধানমন্ত্রী জাতীয় প্রেসক্লাবকে আন্তর্জাতিক মানের প্রেসক্লাব করার বিষয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি জানান, এ জন্য যত রকম সহযোগিতা প্রয়োজন তিনি তা দেবেন।  সাংবাদিকদের আবাসন সুবিধা এবং কল্যাণ ট্রাস্টে অর্থ বাড়ানোর দাবির প্রেক্ষিতে শেখ হাসিনা বলেন, আমার কাছে দাবি করার প্রয়োজন হয় না। কল্যাণ ট্রাস্টের চিন্তা করতে হয়নি, আমি নিজস্ব চিন্তা থেকেই করে দিয়েছি। আওয়ামী লীগ সব সময় সাংবাদিকদের কথা চিন্তা করে, আর সাংবাদিকরা বেশি করে আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে। অবশ্য সমালোচনা ভালো এটা আমাদের দৃষ্টিকে প্রসারিত করে।  এ সময় দেশের উন্নয়নে তার সরকারের ভূমিকা তুলে ধরে তিনি বলেন, স্বাধীনতার উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন করাই এ সরকারের লক্ষ্য। মূল লক্ষ্য বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করা। আমরা দারিদ্র্য কমিয়ে ২২ দশমিক ৭ শতাংশে নামিয়ে এনেছি।  শেখ হাসিনা বলেন, ভিক্ষার ঝুলি নিয়ে আমরা চলতে চাই না। দেশে মানুষ হত্যার রাজনীতি যারা করতে চায়, তাদের আর এসব করতে দেয়া যাবে না। মানুষ পুড়িয়ে কেউ কোনো দিনই ক্ষমতায় আসতে পারবে না।  ইফতারের বেশ খানিকক্ষণ আগেই তিনি সেখানে উপস্থিত হন এবং সবার সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। এ সময় উপস্থিত অতিথিদের সঙ্গে কথা হয় প্রধানমন্ত্রীর।  এ সময় মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, বিরোধীদলীয় নেতারা, কূটনীতিক, সংসদ সদস্য, সাংবাদিক নেতারাসহ ঊর্ধ্বতন বেসামরিক ও সামরিক কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বেতন স্কেল ১০ গ্রেডে উন্নীতকরণের দাবি প্রধান শিক্ষকদের

ডেস্ক রিপোর্ট :: দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড (নন-ক্যাডার) প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন উভয় প্রধান শিক্ষকদের প্রবেশ পদে …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open