বুধবার, ডিসেম্বর ২, ২০২০ : ৫:৫৮ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

যৌন ব্যবসার অভিযোগে গ্রেফতার হয়েছেন যেসব অভিনেত্রীরা

দেহব্যবসার অভিযোগে গতবছরের শেষ অর্ধে গ্রেফতার হয়ে আলোড়ন ফেলে দেন দক্ষিণী তথা বলিউডি ছবির জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্বেতা বসু প্রসাদ। সিনে মহলে যথেষ্ট পরিচিত মুখ তিনি।

তাঁর এই গ্রেফতারের খবরে চারিদিকে শোরগোল পড়ে যায়। পরে বেকসুর খালাস পান তিনি।

এরপর এদিন ফের একজন দক্ষিণী তথা বলিউড অভিনেত্রীর গ্রেফতারের ঘটনায় প্রমাণিত হল, অভিনয়ের পাশাপাশি এটাও তাদের অর্থ রোজগারের অন্যতম একটি পথ।

এই দুটি ঘটনাই নয়। এর আগেও দক্ষিণের সিনেমা জগতের কয়েকজন অভিনেত্রী দেহব্যবসা বা মধুচক্রের কারণে গ্রেফতার হয়েছিলেন।

সিনেমা থেকে রোজগারে সন্তুষ্ট না হয়ে এই অভিনেত্রীরা শিল্পপতি বা বড় ব্যবসায়ীদের শয্যাসঙ্গিনী হয়ে মোটা টাকা কামিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

আসুন দেখে নেওয়া যাক কে কে রয়েছেন সেই তালিকায়।

শ্বেতা বসু
প্রসাদ গত বছরের শেষে বাঞ্জারা হিলসের একটি অভিজাত হোটেল থেকে শ্বেতা বসু প্রসাদকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। অভিযোগ ছিল, পাঁচ লক্ষ টাকার বিনিময়ে তিনি জনৈক ব্যবসায়ীর শয্যাসঙ্গিনী হয়েছিলেন। ধরা পড়ার পর অভিনেত্রী শ্বেতা বসু প্রসাদ জানান, তিনি নির্দোষ। পুলিশ মিথ্যা মামলা সাজিয়েছে। পরে দেখা যায়, আদালতে তাঁর বক্তব্যের সত্যতাই প্রমাণিত হয়। বেকসুর খালাস পান তিনি।

ভুবনেশ্বরী
২০০৯ সালের অক্টোবরে চেন্নাইতে গ্রেফতার হয়েছিলেন তামিল ছবির সুপারস্টার ভুবনেশ্বরী। শুধু যে নিজের মোহময়ী রূপ কাজে লাগিয়ে খদ্দের ধরতেন, তা-ই নয়! গ্ল্যামার জগতের উঠতি তারকাদের এনে জোটাতেন তাঁর ফ্ল্যাটে। প্রতিবেশীদের অভিযোগ পেয়ে তাঁকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ।

ঐশ আনসারি
২০১৩ সালে যোধপুরের একটি হোটেল থেকে আপত্তিকর অবস্থায় তিনজন পুরুষের সঙ্গে ধরা পড়েন ঐশ আনসারি। তদন্তে দেখা যায়, তিনি দেশের বিভিন্ন শহরে এসকর্ট সার্ভিস চালান। ভারতে বেড়াতে আসা বিদেশিদের সঙ্গ দিয়ে রোজগার করতেন ডলার। পরে জামিনে ছাড়া পান তিনি। প্রসঙ্গত, বলিউডের ‘ওম শান্তি ওম’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।

সায়রা বানু
তেলুগু বিনোদন জগতের নায়িকা সায়রা বানুকে দেহব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৩ সালে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। লম্বা আইনি লড়াইয়ের পর তিনি জামিনে ছাড়া পান।

শ্রাবণী
তেলুগু সিনে দুনিয়ার এর এক আবেদনময়ী নায়িকা শ্রাবণীকেও গত বছর মধুচক্র চালানোর অভিযোগ ধরেছিল পুলিশ। অভিযোগ, অন্ধ্রপ্রদেশের কয়েকজন মন্ত্রীও নাকি তাঁর নিয়মিত খদ্দের। সম্ভবত ভিআইপি যোগ থাকায় এ ব্যাপারে পুলিশ বেশি দূর এগোয়নি।

যমুনা
দক্ষিণী ছবির আর এক নায়িকা যমুনাকে ব্যাঙ্গালোর থেকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। ২০১১ সালে। খদ্দেরদের সঙ্গ দেওয়ার জন্য তিনি নাকি লাখ টাকার কমে রফা করতেন না। পাঁচতারা হোটেলে চলত তাঁর অভিসার।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

আয়নাবাজি মুক্তি পাচ্ছে কানাডা-অস্ট্রেলিয়ায়

বিনোদন ডেস্ক ; অমিতাভ রেজা চৌধুরীর আলোচিত চলচ্চিত্র ‘আয়নাবাজি’ বাংলাদেশে মুক্তি পায় গেল ৩০ সেপ্টেম্বর। …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open