মঙ্গলবার, এপ্রিল ২০, ২০২১ : ২:১৩ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

গোলাপগঞ্জ পৌরসভার সাড়ে ৪৩ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা

সিলেটভিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম : সিলেটের গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ২০১৫-১৬ অর্থ বছরের জন্য ৪৩ কোটি ৬৩ লাখ ৫৫ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। পৌরসভার মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু রবিবার বাজেট ঘোষণা করেন।

দুুপুর ১২টায় পৌরসভা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত বাজেট অনুষ্ঠানে এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, সরকারি বেসরকারি কর্মকর্তা, কাউন্সিলার ও ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

বাজেটে বিভিন্ন সরকারি ও উন্নয়ন সংস্থা থেকে অর্থ প্রাপ্তি সাপেক্ষে উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৭ কোটি ৫০ লক্ষ ৫ হাজার টাকা।

এর মধ্যে অবকাঠামো ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ৯৫ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। বাস ট্রাক টার্মিনাল, যাত্রী ছাউনিসহ বিভিন্ন খাতে ১ কোটি ২৫ লক্ষ টাকা ব্যয় ধরা হয়। এছাড়া বাগান পার্ক ও ভূমি অধিগ্রহণ/ক্রয়ের জন্য ৩ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়।

বাজেট বক্তৃতায় মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু বলেন, পৌরসভার ব্যয় নির্বাহের জন্য কর আদায় অপরিহার্য। পৌরবাসী কর আদায় না করলে উন্নয়ন ব্যয় চালানো সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, পৌরসভার সবচেয়ে বড় করখেলাপি উপজেলা প্রশাসন। প্রায় ৭৫ লক্ষ টাকার কর বকেয়া রয়েছে। এধরনের মোট ১৫ টি প্রতিষ্ঠিানের নিকট পৌরকর বকেয়া রয়েছে।

মেয়র জাকারিয়া আহমদ পাপলু বলেন, তিনি যখন দায়িত্ব নিয়ে ছিলেন তখন পৌরসভার ১৫ শতাংশ রাস্তা পাকা ছিল। তার দায়িত্ব গ্রহনের পর এখন পৌরসভার ৯০ ভাগ রাস্তা পাকা করা হয়েছে।

বাজেটে উন্নয়ন খাতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচী, এডিপি, বিশেষ প্রকল্প মঞ্জুরী, দ্বিতীয় নগর পরিচালন অবকাঠামো উন্নতিকরণ প্রকল্প মঞ্জুরী, অফিস ভবন নির্মান মঞ্জুরী, উপজেলা শহর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রাপ্ত মঞ্জুরীর বিপরীতে উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৭ কোটি ৫০ লাখ ৫ হাজার টাকা মোট উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে।

এর মধ্যে অবকাঠামো উন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ কোটি ৯৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা। তন্মধ্যে রাস্তা নির্মান, রাস্তা উন্নয়ন ও মেরামত, ব্রিজ/কালভার্ট নির্মান, গণশৌচাগার নির্মাণ, মেরামত ও সংস্কার, ড্রেন নির্মান, মেরামত ও সংস্কার, পানির লাইন স্থাপন, মেরামত ও স্ংস্কার ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য।

বাস ট্রাক টার্মিনাল, যাত্রী ছাউনি নির্মান, ভূমি অধিগ্রহন/ক্রয় খাতে ১,২৫,০০,০০০ (এক কোটি ২৫ লক্ষ টাকা) টাকার ব্যয় ধরা হয়েছে। মার্কেট নির্মান ও ভূমি অধিগ্রহন/ক্রয়, পার্ক, বাগান নির্মান ও ভূমি অধিগ্রহন/ক্রয় খাতে ৩ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।

এছাড়াও পৌর ভবনের উন্নয়ন/সংস্কার/সম্প্রসারণ, বন্যা নিরোধ প্রকল্প (জরুরী ভিত্তিতে), পৌর ভবন উন্নয়ন/সংস্কার/সম্প্রসারণ, বন্যা নিরোধ প্রকল্প (জরুরী ভিত্তিতে), অডিটরিয়াম নির্মান ও ভূমি অধিগ্রহন/ক্রয়, কমিউনিটি সেন্টার নির্মান ও ভূমি অধিগ্রহন/ক্রয়, কসাই খানা নির্মান/ময়লা আবর্জনা ফেলার ভূমি ক্রয়, গভীর/অগভীর নলকূপ স্থাপন, অসহায় গরীবদের জন্য ঘর নির্মান, মন্দির ও শ্বসান ঘাট উন্নয়ন, ২০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতাল স্থাপন ও পরিচালনা ব্যয়, এম্বুলেন্স ক্রয় ও পরিচালনা ব্যয় বাবদ মোট ১৫ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে।

বিদ্যুত লাইন স্থাপন ও মেরামত (স্ট্রীট লাইট), রং ল্যাট্রিন সরবরাহ/স্যানিটেশন, পৌর সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণ/ বিউটিফিকেশন/ ফোয়ারা,স্টেডিয়াম নির্মান/ মেরামত বাবদ ৫ কোটি ৭৪ লাখ ৫ হাজার টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। 

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

সিলেটে আদালতপাড়া থেকে আসামির পলায়ন নিয়ে তোলপাড়

দুই শ’ পিস ইয়াবাসহ গত মঙ্গলবার র‌্যাব-৯ এর একটি দল আটক করেছিল তাকে। এরপর থানায় …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open