শনিবার, ফেব্রুয়ারী ২৭, ২০২১ : ৬:২৯ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

বিনা যুদ্ধে নাহি দেব সূচাগ্র মেদিনী

গত বিশ্বকাপ ক্রিকেট বদলে দিয়েছে বাংলাদেশকে। এই কথাটি আমি অনেকবার বলেছি। কিন্তু মুখে বললেই তো হবে না, বদলে যাওয়ার প্রমাণ দিতে হবে মাঠে। সেই প্রমাণ পাকিস্তান পেয়েছে, এখন ভারত পাচ্ছে। শুরুতে বললাম বটে, বিশ্বকাপ বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছে, আসলে পুরো টুর্নামেন্ট নয়, বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছে আসলে একটি ম্যাচ। বাংলাদেশ ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় করে দিয়েছে। আফগানিস্তান, স্কটল্যান্ডকে হারিয়েছে দারুণ দক্ষতায়। কাঁপিয়ে দিয়েছিল তখন পর্যন্ত অপ্রতিরোধ্য নিউজিল্যান্ডকে।

কিন্তু এইসব ম্যাচ নয়, বাংলাদেশকে বদলে দিয়েছে আসলে ১৯ মার্চ ভারতের বিপক্ষের ম্যাচটি। সেই ম্যাচে আমরা হেরেছিলাম। কিন্তু পরাজয়ের মধ্যেই লুকিয়েছিল নৈতিক জয়ের গৌরব। হেরে যাওয়া সেই ম্যাচটিই আসলে বদলে দিয়েছে বাংলাদেশকে। বাজে আম্পায়ারিং খেলারই অংশ। কখনো আপনার পক্ষে যাবে, কখনো বিপক্ষে। কিন্তু বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালের মত গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে যখন তিনটি সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের মত ‘পুচকে’ দলের বিপক্ষে যায়, তখন বুঝতে বাকি থাকে না; এই বাজে আম্পায়ারিঙে হাত আছে আইসিসিরও। কারণ ভারত আগেভাগে বাদ পড়লে আয় কমে যাবে। কিন্তু ভদ্রলোকের খেলা ক্রিকেটে তো ক্রিকেটটাই সবার আগে বিবেচনা করার কথা। কিন্তু আইসিসির কাছে ক্রিকেট নয়, টাকাটাই আসল। যাক সেই ম্যাচে ভারত জিতলেও নৈতিক জয়টা কিন্তু বাংলাদেশেরই ছিল। আর সেই ম্যাচই আসলে বদলে দিয়েছে বাংলাদেশকে।

আমি সবসময় বলি ক্রিকেট যতটা না শারীরিক ফিটনেসের খেলা, তারচেয়ে অনেক বেশি মানসিক সামর্থ্যের। ফুটবলে অল্প একটু ইনজুরি থাকলেই মাঠের বাইরে চলে যেতে হয়। কিন্তু তারচেয়ে অনেক বেশি ইনজুরি নিয়ে ক্রিকেটার খেলে যান। রানার নিয়ে সেঞ্চুরি করার অনেক ইতিহাস আছে। ১৯ মার্চ আমাদের সাথে যে অন্যায় করা হয়েছে, তাই আমাদের মানসিকভাবে অনেক এগিয়ে দিয়েছে। আর ম্যাচের আগে ভারতীয় সমর্থকরা যেভাবে আমাদের উস্কানি দিয়েছে, তাও তাতিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশকে। বাংলাদেশ এখন আর কাউকেই ভয় পায় না। এমনকি সেই ম্যাচের আগে ভারতের কেউ কেউ বাংলাদেশকে বিড়াল বলে টিপ্পনী কেটেছিলেন। কেউ কেউ এমনও বলেছেন, বাংলাদেশ দেশের মাটিতে বাঘ, কিন্তু বাইরে বেড়াল। সেই জবাব বাংলাদেশ বিশ্বকাপেই দিয়ে এসেছে। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের দ্রুতগতির পিচেও বাংলাদেশ ছিল দুর্দান্ত। আর ১৮ জুন মিরপুরে ইতিহাস গড়া ম্যাচে চার পেসার নিয়ে খেলে বাংলাদেশ বুঝিয়ে দিয়েছে শুধু স্পিনের মায়াজালের নির্ভরতার দিন শেষ। বাংলাদেশ এখন আক্রমণাত্মক ক্রিকেটেই মারতে পারে ভারতের মত ক্রিকেট দৈত্যকে।

মিরপুরেও তামিম আর সৌম্য মিলে যে ঝড়ো শুরু করেছিলেন, বৃষ্টি এসে ছন্দপতন না ঘটালে রান ৩৫০ ছাড়িয়ে যেতে পারতো। তবুও ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মত ৩০০ ছাড়ানোও কম কথা নয়। যদিও সাকিব বলছিলেন, ২৫ রান কম হয়েছে। তবে অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা মুস্তাফিজ প্রথম ওভারেই বুঝিয়ে দিয়েছে, ভারতের তারকাখচিত ব্যাটিং লাইনআপের কোনো আলাদা মানে নেই তার কাছে। সত্যি বলতে কি, এই ব্যাটিং দেখে আমারও সাকিবের মত মনে হচ্ছিল, রান কিছুটা কম হয়েছে। কিন্তু মুস্তাফিজের প্রথম ওভারের পরই আমি বুঝে গিয়েছিলাম, আজ আমাদের দিন, আজ আমরাই জিতবো। আবার যদি প্রথম ওভারেই ভারত ১৫/১৬ রান নিয়ে নিতে পারতো, তাহলে হয়তো ম্যাচটা তাদেরও দিকেই হেলে যেতে পারতো। কিন্তু বাংলাদেশ এখন অন্য বাংলাদেশ, বদলে যাওয়া বাংলাদেশ। ম্যাচ শুরুর আগেই হেরে যাওয়ার দিন শেষ। এখন লড়াই হবে সমানে সমানে। বিনাযুদ্ধে নাহি দেব সূচাগ্র মেদিনী।

ম্যাচের আগে মহেন্দ্র সিং ধোনি বলেলিনে, ১৯ মার্চের ম্যাচটির কথা ভুলে গেছেন তিনি। কিন্তু আসলে ভুলে যে যাননি তার প্রমাণ রেখেছেন মাঠে। মুস্তাফিজের মত অভিষেক ম্যাচ খেলতে নামা পুচকে কে ধাক্কা দিয়েছেন। ধাক্কা এতটাই জোরে দিয়েছেন যে মুস্তাফিজকে মাঠের বাইরে চলে যেতে হয়। কিন্তু ফিরে এসে মুস্তাফিজ ভারতকেই ম্যাচ থেকে বের করে দিয়েছেন। আম্পায়াররা এ ঘটনার জন্য ধোনিকে দায়ী করলেও ম্যাচ রেফারি দুজনকেই সাজা দিয়েছেন। ধোনির ম্যাচ ফি’র ৭৫ শতাংশ, আর মুস্তাফিজকে ৫০ শতাংশ জরিমানা করা হয়েছে। ধোনি তো ইচ্ছা করে ধাক্কা দিয়েছেন, তাহলে মুস্তাফিজের জরিমানা হলো কেন? এখানেও সেই মোড়লিপনার গল্প। ভারতের পত্রিকায় নিউজ বেরিয়েছে, ধোনিকে সাজা দিলে ভারত টিম ম্যানেজমেন্ট প্রতিবাদ জানাবে, প্রয়োজনে আইসিসি পর্যন্ত যাবে। তাই ভারতকে ঠাণ্ডা করতেই মুস্তাফিজকেও জরিমানা করা  হয়েছে। মুস্তাফিজের অপরাধ হলো, তিনি ব্যাটসম্যানদের দৌড়ের রাস্তা আটকে ছিলেন। অভিযোগ সত্যি, কিন্তু ইচ্ছাকৃত নয়। প্রথম ম্যাচ খেলতে নামা মুস্তাফিজ আসলে বেখেয়ালে অমনটা করেছে। কিন্তু পরাজয়ের শঙ্কায় ক্যাপ্টেন কুল ধোনিরও মাথা গরম হয়ে গিয়েছিল।

শুনছি ভারত নাকি দুর্বল দল নিয়ে আসার পরিকল্পনা করছিল। কিন্তু মূল দল নিয়ে আসার পরও যেভাবে খাবি খাচ্ছে, তাতে দুর্বল দল নিয়ে আসার পরিকল্পনার জন্যও নিশ্চয়ই এখন আফসোস করছেন তারা। সিরিজে আরো দুটি ম্যাচ বাকি আছে। পাকিস্তানের পর ভারতকেও হোয়াইট ওয়াশ করতে পারলে সবচেয়ে আনন্দের হবে, নিদেনপক্ষে সিরিজ জিততে তো চাইবোই। তবে বাংলাদেশ আমার প্রত্যাশার আকাশ ছুঁয়ে ফেলেছে অনেক আগেই।

খেলায় হার-জিত আছে। বাংলাদেশ বদলে গেছে বলেই যে সব ম্যাচ জিতবে এমন কোনো কথা নেই। আমি সব সময় যেটা চাইতাম, খেলা হবে সমানে সমান, শুরুর আগেই যেন হেরে না বসি। সেটা পেয়ে গেছি। এখন কোনো চাপ না নিয়ে মনের আনন্দে খেলে যেতে হবে। –

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

সেই রাবি শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর যৌন হয়রানির অভিযোগ

আত্মহত্যা’ করা রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আকতার জাহান জলির সাবেক …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open