সোমবার, অক্টোবর ২৫, ২০২১ : ৬:৩০ পূর্বাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

আইএমইআই-বিহীন মোবাইল ফোনে ঝুঁকছে অপরাধীরা

সিলেটভিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম : আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের নজরদারি এড়াতে আইএমইআই (International Mobile Equipment Identity)-বিহীন মোবাইল ফোন ব্যবহারে ঝুঁকছে রাজধানীর অপরাধ চক্রের সদস্যরা। আর এসব আইএমইআই নম্বরবিহীন মোবাইল আসছে বিমানবন্দর, কুরিয়ার সার্ভিস এবং সীমান্ত দিয়ে। বাংলাদেশ ডাক বিভাগের বিমানবন্দর শাখার মেইল অ্যান্ড সর্টিং বিভাগ, শুল্ক কর্তৃপক্ষ এবং শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, সম্প্রতি অপরাধীদের মধ্যে এ ধরনের মোবাইল ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে। কেননা আইএমই নম্বর না থাকলে কল ট্র্যাকিংয়ে অপরাধীর অবস্থান নির্ধারণ করা সম্ভব হয় না। ফলে বড় ধরনের অপরাধ করার পর নিরাপদে থেকে যাচ্ছে অপরাধীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সাম্প্রতিক সময়ে অপহরণ, মুক্তিপণ ও চাঁদাবাজি মতো ঘটনা মোবাইলফোনের মাধ্যমে হচ্ছে। অপরাধীরা ভুয়া রেজিস্ট্রেশন নম্বরের সিম ব্যবহার করে একের পর এক অঘটন ঘটিয়ে যাচ্ছে। মোবাইলের মাধ্যমে ফাঁদ তৈরি করে অথবা মিথ্যা তথ্যের মাধ্যমে রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়ী বা সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিদের অপহরণ করা হচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে তরুণীদের মাধ্যমে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের ফাঁদে ফেলা হচ্ছে। এছাড়াও মোবাইলে শীর্ষ সন্ত্রাসীদের নামে চাঁদা আদায়, হুমকি ধমকির ঘটনা বৃদ্ধি  পেয়েছে। সাধারণত ইন্টারনেট কলের মাধ্যমে এসব ফোনকল আসায় অপরাধীদের ধরা সম্ভব হচ্ছে না। মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশের মাধ্যমেও চাঁদা আদায় করা হচ্ছে। ভুয়া রেজিস্ট্রেশনের সিমকার্ড ও আইএমইআই নম্বরবিহীন মোবাইল ফোন অবাধে ব্যবহারের ফলে এ ধরনের অপরাধ দমন করা যাচ্ছে না। যদিও  এ ধরনের অপরাধ দমনের লক্ষ্যে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগে একটি মনিটরিং সেল কাজ করছে।

অপরাধ বিশেষজ্ঞ ও পুলিশের সাবেক আইজি আব্দুল কাইয়ুম বলেন, মোবাইল ফোনসেট, সিমকার্ড ও মেমোরি কার্ডের সহজলভ্যতার কারণে দিন দিন এ অপরাধ বাড়ছে। এ ব্যাপারে তিনি অভিভাবকদের আরো সচেতন হওয়ার পরামর্শ দেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, সাইবার ক্রাইম প্রতিরোধে পুলিশ যথেষ্ট সজাগ রয়েছে। এমন অপরাধীদের সনাক্তকরণ ও অবৈধভাবে আসা আইএমইআই নম্বরবিহীন মোবাইল ফোন আমদানি ও ব্যবহার বন্ধের কাজ চলছে।

ডিএমপির যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় (ক্রাইম বিভাগ) বলেন, অপরাধীরা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি এড়াতে নানা কৌশল অনুসরণ করে। আইএমইআই নম্বরবিহীন মোবাইল তারা বেশি ব্যবহার করছে। তবে গোয়েন্দা পুলিশ ইতোমধ্যে এমন বেশ কিছু অপরাধীদের সনাক্ত করেছে। অনেকে আটকও হয়েছে।

কাস্টমস কর্তৃকক্ষ ও শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১৯ মার্চ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে রেজিস্টার্ডবিহীন মোবাইলফোন জব্দ করে শুল্ক বিভাগ। বিমানবন্দর কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে মোবাইল ফোনগুলো আসছিল। এরমধ্যে ছিল ১৪টি আইফোন, ৩৫টি স্যামসাং মোবাইলফোন, দুই হাজার মেমোরি কার্ড।

৩১ মার্চ একইভাবে শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে ১০ লাখ টাকার আইফোন ও স্যামস্যাং গ্যালাক্সি এসফোর মোবাইলফোন জব্দ করে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। ডিএইচএল কুরিয়ার সার্ভিসের একটি পার্সেল থেকে এগুলো উদ্ধার করা হয়। একইভাবে গত ২৮ মে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩০ কোটি টাকা মূল্যের স্যামসাং, আইফোনসহ বিভিন্ন ব্রান্ডের ১৫ হাজার মোবাইল সেট জব্দ করেছে বিমানবন্দর কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

বিমানবন্দরের এয়ার ফ্রেইট এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই হ্যান্ডসেটগুলো জব্দ করা হয়। বিমানবন্দর কাস্টমসের সহকারি কমিশনার শাহেদুজ্জামান সরকার জানান, হ্যান্ডসেটগুলো কোনো ধরনের আমদানি অনুমতিপত্র ছাড়া আমদানি করার চেষ্টা চলছিল।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান  বলেন, বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স রেগুলেটরি কমিটিকে (বিটিআরসি) অনুমোদন সংক্রান্ত কাগজপত্র ছাড়া শুল্ক না দিয়েই হ্যান্ডসেট চোরাইপথে আমদানি ও বিক্রি করা হচ্ছে। হ্যান্ডসেটগুলোর বেশিরভাগই ক্লোন বা নকল। সেটগুলোর সঙ্গে কোন ওয়ারেন্টি দেয়া হয় না। এগুলো বিক্রি করে গ্রাহকদের সঙ্গে প্রতারণা করা হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, মোবাইল হ্যান্ডসেটগুলোর আইএমইআই নম্বর নেই। সে কারণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এগুলো ট্রেস করতে পারে না, যা জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরুপ।

ডিএমপির উপ-কমিশনার (ডিসি মিডিয়া) মুনতাসিরুল ইসলাম  বলেন, যে সিন্ডিকেট অপরাধীদের হাতে মোবাইল  সরবরাহ করছে তাদের সনাক্ত করা হয়েছে। খুব শিগগিরই তাদের গ্রেফতার করা হবে।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বেতন স্কেল ১০ গ্রেডে উন্নীতকরণের দাবি প্রধান শিক্ষকদের

ডেস্ক রিপোর্ট :: দ্বিতীয় শ্রেণির গেজেটেড (নন-ক্যাডার) প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ও প্রশিক্ষণবিহীন উভয় প্রধান শিক্ষকদের প্রবেশ পদে …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open