সোমবার, মে ১৭, ২০২১ : ১:৪৯ অপরাহ্ন
সদ্যপ্রাপ্ত সংবাদঃ

সিলেটে ছিনতাই ও মাদক ব্যবসায় ছাত্রলীগ

 সিলেটে ক্রমেই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ছে সরকারি দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ। সংগঠনটির নেতাকর্মীরা জড়িয়ে পড়েছেন ছিনতাই ও মাদক ব্যবসার মত অপরাধ কর্মে। সাম্প্রতিক সময়ে সিলেটে একাধিক ছাত্রলীগ নেতাকর্মী ছিনতাই ও মাদক ব্যবসার কারণে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছেন। সাধারণ সম্পাদক ছিনতাইয়ে জড়িত থাকার কারণে মহানগরীর একটি ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটিও গত কয়েকদিন আগে বাতিল করা হয়। সিলেট মহানগরীর ছিনতাই ও মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রণে ছাত্রলীগের শীর্ষ নেতা থেকে শুরু করে ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতাকর্মীরাও জড়িয়ে পড়েছেন।

জানা যায়, সিলেট নগরীতে সাম্প্রতিক সময়ে ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটছে। একের পর এক ছিনতাইয়ের ঘটনায় আতংকিত হয়ে পড়েছেন নগরবাসী। ছিনতাইয়ের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় সিলেট মহানগর পুলিশ গত কয়েকদিন ধরে নগরীতে সাঁড়াশি অভিযান চালাচ্ছে। তাদের অভিযানে ইতোমধ্যেই একাধিক ছাত্রলীগ নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছেন। কয়েকদিন আগে নগরীর শিবগঞ্জে মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী শাহীনুল আম্বিয়ার ২ লাখ ২০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা। ছিনতাইয়ের সময় স্থানীয় এক ব্যক্তি পুরো ঘটনাটি নিজের সেলফোনে ভিডিও করে রাখেন। পরে এই ভিডিও দেখে অভিযানে নেমে মহানগরীর ২২ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাহিদ খান, ছাত্রলীগ কর্মী আবুল হাসনাত সিদ্দিকীসহ ৩ জনকে আটক করে পুলিশ।

ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে মোশাহিদ খান আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। এ ঘটনার পর ২২ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কমিটি বাতিল করা হয়। তবে মোশাহিদ খানকে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়নি। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ছিনতাইয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন। সম্প্রতি সিলেট এমসি কলেজে ছিনতাইয়ের শিকার হন এক চীনা নাগরিক। এ ঘটনার সাথেও কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা জড়িত বলে জানা গেছে। এমসি কলেজ এলাকায় ছিনতাইয়ের নিয়ন্ত্রণ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের হাতে রয়েছে বলে জানায় একটি সূত্র।

এদিকে গত রবিবার সিলেট সদর উপজেলার শিবেরবাজার থেকে মহানগর ছাত্রলীগের সহ সাধারণ সম্পাদক মিজান পারভেজ ও ছাত্রলীগ কর্মী নাজমুল হোসেনকে ফেনসিডিলসহ আটক করে পুলিশে দেয় স্থানীয় জনতা। মিজান পারভেজের নেতৃত্বে শিবেরবাজার এলাকায় মাদক ব্যবসা চলতো বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জানা যায়, সিলেট নগরীতে প্রায় অর্ধ শতাধিক মাদক স্পট রয়েছে। নগরীর পুরাতন রেলস্টেশন, ভাটপাড়া, কল্যাণপুর, কায়স্তরাইল, বাইপাস রোড, চৌকিদেখি, পীরমহল্লাসহ বিভিন্ন স্পটে গড়ে ওঠেছে মাদকের বেচা-কেনার আস্তানা। এসব আস্তানার বেশিরভাগের নিয়ন্ত্রণে রয়েছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

এদিকে শুধু ছাত্রলীগই নয়, ছাত্রদলের বেশ কয়েকজন নেতাকর্মীও ছিনতাই ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে জানা গেছে। কিছু কিছু জায়গায় ছাত্রলীগ-ছাত্রদল নেতাকর্মীরা সিন্ডিকেট করে ছিনতাই ও মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করেন।

এ ব্যাপারে সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রাহাত তরফদার জানান, ২২ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিনতাইয়ে জড়িত থাকার কারণে ওই কমিটি বাতিল করা হয়েছে। ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে কেউ অপকর্ম করছে কিনা তা কঠোর নজরদারি করা হচ্ছে। কারো বিরুদ্ধে অভিযোগ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এছাড়াও নিম্নের সংবাদগুলো দেখতে পারেন...

বিশ্বনাথে ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি মেম্বার গ্রেফতার

সিলেটের বিশ্বনাথে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে উপজেলার দৌলতপুর ইউপির ১নং ওয়ার্ডে মেম্বার …

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Open